1. rajeshgourpress@gmail.com : rajesh24 :
  2. mediaitbd@gmail.com : mit : Editor
সোমবার, ২৬ অক্টোবর ২০২০, ০৩:৫৫ অপরাহ্ন
ঘোষণা:
শিরোনাম:
আজ শুভ বিজয়া, দুর্গাপুরে মণ্ডপে মণ্ডপে বিদায়ের সুর মোহনগঞ্জে গরু বাঁচাতে গিয়ে ট্রেনে কাটা পড়ে বৃদ্ধা নিহত দুর্গাপুর পৌরশহরের পূর্জামন্ডপ পরিদর্শন করলেন মেয়র প্রার্থী এ্যাডভোকেট সজয় চক্রবর্ওী গুণীজন আর পদ আলাদা, গুণীজনরা দেশ ও জনগণের কল্যান করতে পারে-বিচারপতি ওবায়দুল হাসান শাহীন দুর্গাপুরে কুমারী পূজা অনুষ্ঠিত আইপি টিভি ওনার্স এসোসিয়েশনের নবনির্বাচিত কমিটির সদস্য সচিব হলেন রাসেল মিয়া হৃদয় আইপি টিভি ওনার্স এসোসিয়েশনের নবনির্বাচিত কমিটির সদস্য সচিব হলেন রাসেল মিয়া হৃদয় নেত্রকোনায় কবিতা আবৃত্তি প্রতিযোগিতায় প্রথম হয়েছে তানভীয়া আজিম কলমাকান্দায প্রধানমন্ত্রী বরাবরে ফেসবুকে পোষ্ট দেয়া ছাত্রলীগ কর্মীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার দুর্গাপুর পৌরসভার ২৪ টি পূজা মন্ডপে আর্থিক সহায়তা দিলেন সমাজসেবক আলা উদ্দিন আলাল

নেত্রকোনায় সূনেত্র ক্লিনিকে সিলগালা, ৫৫ হাজার টাকা জরিমানা আদায়

  • আপডেট: শুক্রবার, ১৬ অক্টোবর, ২০২০
  • ১৭০ বার পড়া হয়েছে

কে. এম. সাখাওয়াত হোসেন :
নেত্রকোনায় ক্লিনিকে সিজারিয়ান রোগীকে ভূল চিকিৎসায় প্রসূতি মৃত্যুর ঘটনায় সূনেত্র ক্লিনিকে অভিযান চালিয়ে সিলগালা করে দিয়েছে স্থানীয় প্রশাসন। এসময় তথ্য প্রমাণের ভিত্তিতে নগদ ৫৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। এ অভিযান পরিচালনা করেন ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নারায়ণ চন্দ্র বর্মণ।

বৃহস্পতিবার (১৫ অক্টোবর) সন্ধ্যায় শহরের ছোট বাজার এলাকায় ক্লিনিকটিতে অভিযান চালিয়ে তথ্য প্রমাণের ভিত্তিতে সিলগালা সহ জরিমানা আদায় করা হয়েছে। এসময় অভিযানে উপস্থিত ছিলেন ডাক্তার উত্তম কুমার পাল, জেলার স্যানিটারি ইন্সপেক্টর আব্দুল হক মানিকসহ পুলিশ সদস্যরা।
এর আগে বুধবার (১৪ অক্টোবর) দুপুরে জেলা সিভিল সার্জন ৫ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে দেন।

গত সোমবার (১২ অক্টোবর) সদর হাসপাতালের সাবেক আরএমও ডাক্তার মোস্তাফিজুর রহমানের ভাগ্নি লক্ষিগঞ্জ ইউনিয়নের আইরিন পারভীন ঝর্ণা (৩৫) নামের এক প্রসূতিকে সিজার করতে গিয়ে মূত্রথলি কেটে ফেলেন ডাক্তার জীবন কৃষ্ণ সরকার। সেই রোগীকে সগহযোগীদের হাতে ছেড়ে দিয়ে অন্য আরেকটি সিজারে চলে যান কলিং ডাক্তার নামে পরিচিত জীবন কৃষ্ণ। অতিরিক্ত রক্তক্ষরণের খবরে আবারো এসে ওটি করে প্রসূতির জরায়ু কেটে ফেলেন তিনি। এদিকে ফুটফটে একটি ছেলে সন্তান জন্ম দিয়েই প্রসূতি মা মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়তে থাকে।

পরপর তিনটি অপারেশনের পর ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হপাপতাপালে প্রেরণ করা হয়। ১৪ ব্যাগ রক্ত দিয়েও আর বাঁচানো যায়নি ঝর্ণাকে। তার স্বজনসহ পরিবারের লোকজন জানান তরিঘরি করে এই ডাক্তার এমন কাজটি করেছে। সময়ই দেয়নি জানা বোঝার জন্য।

এর আগেও গত জানুয়ারী মাসে একই ডাক্তার শহরের আল নূর ক্লিনিকে রোজীনা নামের আরেক প্রসূতির সিজারে এমন মৃত্যু বরণের ঘটনায় থানায় অভিযোগ হয়। পরে টাকার বিনিময়ে সেটিও মীমাংসা হয়। এরই মাঝে নেত্রকোনা নাসিং হোমে শহরের শিবগঞ্জ রোডের এক প্রসুতির মুত্যুর ঘটনায় নাসিং হোমটি বন্ধ হয়ে যায়। বারবার একই ডাক্তার এমন ঘটনা ঘটিয়ে গেলেও ঐশ^রিক শক্তির কারণে পার পেয়ে যাচ্ছেন তিনি।

এমন অভিযোগ বিভিন্ন সময়ে ক্ষতিগ্রস্থ হওয়া সাধারণ ভুক্তভোগিদের। এমনকি বন্ধ হয়ে যাওয়া ক্লিনিকের মালিকরাও বলছেন তিনি সিজার করেন আর এর দায় নিতে হয় ক্লিনিককে।

এ ব্যাপারে জেলার সিভিল সার্জন তাজুল ইসলাম জানান, বিভিন্ন রকমের চাপ আসছে। তারপরও খবর পেয়ে আমরা প্রাথমিক ব্যবস্থা নিয়েছি। তদন্ত কমিটি প্রতিবেদন জমার বিষয়ে তিনি বলেন প্রচন্ড চাপ আসায় তদন্ত নিয়ে বিপাকে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Comments are closed.

আরো সংবাদ পড়ুন
© স্বর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। এই ওয়েবসাইটের যোকোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

প্রযুক্তি সহায়তায় মাল্টিকেয়ার