1. rajeshgourpress@gmail.com : rajesh24 :
  2. mediaitbd@gmail.com : mit : Editor
সোমবার, ২৬ অক্টোবর ২০২০, ০৪:১৩ অপরাহ্ন
ঘোষণা:
শিরোনাম:
আজ শুভ বিজয়া, দুর্গাপুরে মণ্ডপে মণ্ডপে বিদায়ের সুর মোহনগঞ্জে গরু বাঁচাতে গিয়ে ট্রেনে কাটা পড়ে বৃদ্ধা নিহত দুর্গাপুর পৌরশহরের পূর্জামন্ডপ পরিদর্শন করলেন মেয়র প্রার্থী এ্যাডভোকেট সজয় চক্রবর্ওী গুণীজন আর পদ আলাদা, গুণীজনরা দেশ ও জনগণের কল্যান করতে পারে-বিচারপতি ওবায়দুল হাসান শাহীন দুর্গাপুরে কুমারী পূজা অনুষ্ঠিত আইপি টিভি ওনার্স এসোসিয়েশনের নবনির্বাচিত কমিটির সদস্য সচিব হলেন রাসেল মিয়া হৃদয় আইপি টিভি ওনার্স এসোসিয়েশনের নবনির্বাচিত কমিটির সদস্য সচিব হলেন রাসেল মিয়া হৃদয় নেত্রকোনায় কবিতা আবৃত্তি প্রতিযোগিতায় প্রথম হয়েছে তানভীয়া আজিম কলমাকান্দায প্রধানমন্ত্রী বরাবরে ফেসবুকে পোষ্ট দেয়া ছাত্রলীগ কর্মীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার দুর্গাপুর পৌরসভার ২৪ টি পূজা মন্ডপে আর্থিক সহায়তা দিলেন সমাজসেবক আলা উদ্দিন আলাল

পূর্বধলায় দাদনের টাকাই-কাল হলো মিন্টুর, পুলিশ সুপার

  • আপডেট: শুক্রবার, ১৬ অক্টোবর, ২০২০
  • ২৬ বার পড়া হয়েছে

কে. এম. সাখাওয়াত হোসেন : দাদন ব্যবসার জন্য নগদ টাকা পয়সা সাথে নিয়ে চলাফেরা করত রুকুনুজ্জামান খান মিন্টু (৪০)। এই টাকা পয়সাই জন্য প্রাণ দিতে হলো তাকে। তিনি নেত্রকোনার পুর্বধলা উপজেলায় বালিয়া গ্রামের মো. আ. কাদির খানের ছেলে।

একই গ্রামের মিজান (২৫) ও আজাহার (২১) বিষয়টি পূর্ব থেকে জানা থাকায় তারা মিন্টুর কাছ থেকে টাকা পয়সা ছিনতাইয়ের পরিকল্পনা করে। তারা এ কাজে সহায়তার জন্য গাজীপুর থেকে আরও তিনজনকে খবর দিয়ে নিয়ে আসে। মিন্টু বাড়ি ফেরার অপেক্ষায় তারা পাঁচজন পরিকল্পনার অংশ হিসেবে রাত সাড়ে ১২টার দিকে ঘটনাস্থল সংলগ্ন সাত্যাটি বাঁশতল বাজারে অবস্থান করতে থাকে।

রাত অনুমান ২টার দিকে মিন্টু ভাড়া করা মোটরসাইকেল থেকে নেমে সাত্যাটি বাঁশঝাড় বাজার হতে পায়ে হেঁটে নিজ বাড়ি যাচ্ছিল। পথিমধ্যে সোহেল মিয়ার বসত বাড়ীর পূর্ব পার্শ্বে কালভার্টের উপর গাজীপুর থেকে আসা তিনজনের দুইজন পথরোধ করে মিন্টুর এবং আরেকজন পিছন থেকে বাঁশ দিয়ে আঘাত করে। পরে তারা মিন্টুর শরীরের বিভিন্ন স্থানে ছুড়ি দিয়া আঘাত করতে থাকে। এ সময় একই গ্রামের অপর দুইজন মিজান ও আজাহার ঘটনাস্থল সংলগ্ন মসজিদের টয়লেটের পিছনে অবস্থান নেয়। মিন্টুর ডাক চিৎকারে আশপাশের বাড়ী-ঘরের লোকজন আসতে থাকলে তারা সকলে পালিয়ে যায়।

বৃহস্পতিবার (১৫ অক্টোবর) রাত ১০টার দিকে এক প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে নেত্রকোনার পুলিশ সুপার মো. আকবর আলী মুনসী পূর্বময়কে এমনি এক ঘটনার তথ্য জানান।

প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে তিনি জানান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মো. ফখরুজ্জামান জুয়েল ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মোরশেদা খাতুন তথ্য প্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে তদন্ত কর্মকর্তা উপ-পরিদর্শক (এসআই) তাপস বণিক সন্দেহ ভাজন হিসেবে আজাহারকে গ্রেফতার করে। আজাহার পূর্বধলার বালিয়া (বড়বাড়ি) গ্রামের মো. আ. হারেছ খানের ছেলে। জিজ্ঞাসাবাদে সে একই গ্রামের সুরুজ আলীর ছেলে মিজান সহ গাজীপুর হতে আসা তিন আসামির নাম স্বীকার করে এবং দুজনই ১৬৪ ধারায় জবানবন্দী প্রদান করেছে।

উল্লেখ্য, গত ২৮ আগস্ট রাতে বাড়ি ফেরার পথে অজ্ঞাতনামা দুষ্কৃতিকারীরা অর্তকিত হামলা চালিয়ে গুরুতর আহত করে রুকুনুজ্জামান খান মিন্টুকে। তাকে উদ্ধার করে আত্মীয়-স্বজনেরা পূর্বধলা হাসাপাতালে ভর্তি করান। পরে কর্তব্যরত ডাক্তার উন্নত চিকিৎসার জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড প্রেরণ করেন। দুইদিন পর গত ২৪ আগস্ট দুপুর ১টার দিকে সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মিন্টু মারা যান এবং অজ্ঞাতনামা করে পূর্বধলা থানায় মামলা দায়ের করা হয়।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Comments are closed.

আরো সংবাদ পড়ুন
© স্বর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। এই ওয়েবসাইটের যোকোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

প্রযুক্তি সহায়তায় মাল্টিকেয়ার