স্মৃতিকথনঃ- নেত্রকোনা-১ আসনের সাংসদ মানু মজুমদার

রাজেশ গৌড় রাজেশ গৌড়

দুর্গাপুর,নেত্রকোনা

প্রকাশিত: ১০:৩৪ পূর্বাহ্ণ, মে ২৪, ২০২১

সম্পাদনা- রাজেশ গৌড়

কোনো এক কমান্ডিং অভিযানে ঢাকায় গিয়ে খন্দকার মোস্তাক কে হত্যা করবো বলে ধরা খাই ধরা খাওয়াতে আমার ফাঁসির আদেশ হলো তারপর সভানেত্রীর অনেক প্রচেষ্টায় রিভিউ এর মাধ্যমে ফাঁসির আদেশ মওকুফ হয়ে যাবৎজীবন সাজা হয়,সাজা ভোগ করার পর দুই, একদিন শেখ হাসিনার সাথেই ছিলাম,তারপর হঠাৎ করে ময়মনসিংহ যাই তো হঠাৎ ১০ টার বিবিসির নিউজ শুনলাম ৩২ নাম্বার বোমা মারছে,সাথে সাথে প্যান্ট শার্ট পড়া শুরু করলাম, তো হালুয়া ঘাটের উপজেলার চেয়ারম্যান ফারুক আহমেদ খান জিজ্ঞেস করলো দাদা এত রাতে প্যান্ট,শার্ট পড়ছেন কেনো??? আমি বল্লাম আপার বাসায় বোম মারছে যাইতে হইবো,তো সাথে সাথে গেলাম মাসকান্দা বাসষ্ট্যান্ড গিয়া দেখি বাস নাই তো মোহনগন্জের একটা মাছের ট্রাকে কইরা কাওরান বাজার আসি,তখন ভোর হয়ে গেছে তো হাটতে হাটতে কাওরান বাজার দিয়ে পান্থপথ হয়ে ৩২ নাম্বার আপার বাসায় আসি তো দুর থেকে দেখি আপা ঘড়ের ভিতর বারান্দায় হাটতে ছিলেন আর তসবি জপ করতে ছিলেন আমি তখন দরজায় নক করলাম তখন আপা বল্লো কে???আমি বল্লাম আমি মানু,আপা বল্লো আয়,এই গোলাপ মিয়া দরজা খুইলা দেও গোলাপ মিয়া দরজা খুলে দিলো আমি ভিতরে প্রবেশ করলাম সেই গেলাম আজো গেলাম কালো গেলাম ৩৭ টি বছর একত্রে উনার সাথে কাটিয়েছি বিশ্বস্হতার সহিত,কোন ফ্রড,বেঈমানী,ব্যবসা,বানিজ্য, টাকা পয়সা কামিয়েছি কেও প্রমান দিতে পারবেনা!!! কারো সাথে কোনোদিন কোন ফ্রড, বেঈমানী করেছি কেও প্রমান দিতে পারবেনা। ৩৭ বছরে চাইলে কয়েক হাজার কোটি টাকার মালিক হয়ে যেতে পারতাম,,,,,,

মানু মজুমদার এমপি,,,,,,,,,

এই লেখাটি বিপ্লব মজুমদারের ফেসবুক আইডি থেকে নেওয়া..